২০১৮ সালে বিশ্বের সবচেয়ে অর্থ ও সম্পদশালী ১০ ব্যক্তি

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাগাজিন ফোবস প্রতিবছর বিশ্বের শীর্ষ ধনী ব্যক্তিদের তালিকা প্রকাশ করে থাকে। প্রতিবারের ন্যায় এ বছরও তারা তাদের নিজস্ব ওয়েরসাইটে বিশ্বসেরা বিলিয়নিয়ারদের সম্পদের উৎস, ক্ষেত্র, পরিমানসহ পূর্ণ বিবরণী তালিকা প্রকাশ করছে। ১২ এপ্রিল ২০১৮ পর্যন্ত শীর্ষে থাকা বিশ্বের ১০ সম্পদশালী ব্যক্তিদের বিবরণ দেয়া হল।

১০. ল্যারি এলিসন

আমেরিকান মাল্টি ন্যাশনাল কম্পিউটার টেকনোলোজি কর্পোরেশন ওরাকল এর চেয়ারম্যান ল্যারি এলিসন বিশ্বসেরা ধনী ব্যাক্তিদের তালকায় ১০ম অবস্থানে আছেন। ১৯৭৭ সালে ল্যারি এলিসন, বব মিনার ও এড ওয়াটেস মিলে ওরাকল প্রতিষ্ঠা করেন। ২০১৪ সালে তিনি ওরাকলের সিইও পদটি ছেড়ে দিয়েছেন, কিন্তু এখনো তিনি বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং চীফ টেকনোলজি অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ৭৩ বছর বয়সী ল্যারি এলিসন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করেন। তাঁর সম্পদের উৎস সফটওয়্যার ও তাঁর নিজস্ব সম্পত্তি। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৫৬.৫ বিলিয়ন ডলার।

৯. ডেভিড কোচ

কোচ ইন্ডাস্ট্রিজ এর উপনির্বাহী ডেভিড কোচ বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় ৯ম অবস্থানে আছেন। তার ভাই চার্লসের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রাইভেট ফার্ম কোচ ইন্ডাস্ট্রিজ এর অধিকাংশ নিয়ন্ত্রণ করেন তিনি। ৭৭ বছর বয়সী ডেভিড কোচ যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দা। সুপরিচিত মনুষ্যপন্থী ডেভিড নিউ ইয়র্কের লিঙ্কন সেন্টার এবং স্মারক-স্লোন কেটারিং ক্যান্সার সেন্টারের একজন দাতা। তাঁর সম্পদের উৎস কোচ ইন্ডাস্ট্রিজ। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৬১.৪ বিলিয়ন ডলার।

 

৮. চার্লস কোচ

বিশ্বের ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় ৮ নম্বর অবস্থানে আছেন কোচ ইন্ডাস্ট্রিজ এর প্রধান নির্বাহী চার্লস কোচ। ১৯৬৭ সাল থেকে আমেরিকার দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রাইভেট কোম্পানী কোচ ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী চার্লস কোচ। ৮২ বছর বয়সী চার্লস কোচ যুক্তরাষ্টের উইচিতার ক্যানসাসে বসবাস করেন। তাঁর সম্পদের উৎস কোচ ইন্ডাস্ট্রিস। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৬১.৪ বিলিয়ন ডলার।

 

 

৭. কার্লোস স্লিম হেলু

আমেরিকা মোভিলের চেয়ারম্যান কার্লোস স্লিম হেলু মেক্সিকোর সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি। আমেরিকা মোভিল ল্যাটিন আমেরিকার সবচেয়ে বড় মোবাইল টেলিকম ফার্ম। ফোবসের ৭ম স্থানে থাকা ৭৮ বছর বয়সী এই ধনাঢ্য ব্যক্তির সম্পদের উৎস টেলিকম বিজনেজ ও তাঁর ব্যক্তিগত সম্পত্তি। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৭১.৮ বিলিয়ন ডলার।

 

 

 

৬. আমানসিও ওর্তেগা

ইউরোপের সেরা ধনী ব্যক্তিদের একজন তিনি। তাঁকে বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী খুচরা ব্যবসায়ী বলা হয়ে থাকে। তিনি তাঁর ব্যবসা থেকে বছরে প্রায় ৪০০ মিলিয়ন ডলার আয় করেন। তিনি প্রধানত মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, লন্ডন, শিকাগো, মিয়ামি এবং নিউ ইয়র্কের রিয়েল এস্টেটে তার লভ্যাংশ বিনিয়োগ করেছেন। ৮২ বছর বয়সী ওর্তেগা স্পেনের লা করুনায় বসবাস করেন। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৬৮.৭ বিলিয়ন ডলার। সম্পদের উৎস তাঁর প্রতিষ্ঠান জারা এনং তাঁর নিজস্ব সম্পত্তি।

 

 

৫. মার্ক জুকারবার্গ

ফেইসবুকের সহঃপ্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জুকারবার্গ এ বছরের ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় ৫ম অবস্থানে আছেন।৩৩ বছর বয়সী জুকারবার্গের সম্পদের উৎস ফেইসবুক ও তাঁর নিজস্ব সম্পত্তি। তিনি একজন আমেরিকান কম্পিউটার প্রোগ্রামার ও সফটওয়্যার ডেভেলপার। তার পুরো নাম মার্ক এলিয়ট জুকারবার্গ, যার আসল পরিচিতি হল জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইট ফেইসবুকের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে। ২০০৪ সালে হার্ভার্ডে পড়ার সময় বন্ধুদের সাথে মিলে প্রতিষ্ঠা করেন সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইট ফেইসবুক ডট কম। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন তিনি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাজীবনের ইতি টানেন। ২০১০ সালে ফেসবুকের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে মার্ক জুকারবার্গ বিশ্বের সর্বাধিক পঠিত সাপ্তাহিক টাইমস ম্যাগাজিন  কর্তৃক পারসন অব দ্য ইয়ার হিসেবে মনোনীত  হন। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৬৫.৬ বিলিয়ন ডলার।

 

 

৪. বার্নার্ড আর্নল্ড

এলভিএমএইচ এর প্রধান নির্বাহী ও চেয়ারম্যান বার্নার্ড অ্যারানাল্ট বর্তমান বিশ্বের সেরা ধনীদের তালিকায় চতুর্থ স্থানে আছেন। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৮৫ মিলিয়ন ডলার। ৬৯ বছর বয়সী এই  ভদ্রলোকের সম্পদের উৎস তাঁর প্রতিষ্টান এলভিএমএইচ। তিনি ইকলা পলিটেকনিক ডি প্যারিস থেকে ব্যচেলর অব আর্টস অর সাইন্সে শিক্ষাগ্রহণ করেন। তিনি ফ্রান্সের প্যারিসের নাগরিক।

 

 

 

 

৩. ওয়ারেন বাফেট

বার্কশায়ার হাটওয়ের প্রধান নির্বাহী ওয়ারেন বাফেট বিশ্বসেরা ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় ৩য় স্থানে আছেন। ওয়ারেন বাফেটকে বলা হয় শেয়ার বাজারের যাদুকর। তিনি ১১ বছর বয়সে শেয়ার বিজনেস শুরু করেন এবং তেরো বছর বয়স থেকে করদান শুরু করেন। তিনি নেব্রাস্কা লিংকন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যাচেলর অফ আর্টস এন্ড সাইন্স এবং কলোম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স অব সাইন্স ডিগ্রী অর্জন করেন। তাঁর বর্তমান সম্পদের পরিমাণ ৮৪.৯ বিলিয়ন ডলার। ৮৭ বছর বয়সী ওয়ারেন বাফেটের সম্পদের উৎস বার্কশায়ার হাটওয়ে এবং তাঁর নিজস্ব সম্পত্তি। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নেব্রাস্কার ওমাহায় বাস করেন। তিনি তাঁর মোট সম্পদের ৯৯ ভাগেরও বেশি দাতব্য খাতে দান করতে ওয়াদাবদ্ধ। তথ্য অনুযায়ী তিনি এ পর্যন্ত ৩২ মিলিয়ন ডলার দাতব্য খাতে দান করেছেন।

 

 

২. বিল গেটস

বর্তমান বিশ্বের সেরা ধনী ব্যক্তির তালিকায় ২য় স্থানে আছেন বিলি এন্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস। তাঁর বর্তমান সম্পত্তির পরিমাণ ৯০.৯ বিলিয়ন ডলার। ৬২ বছর বয়সী এই ভদ্রলোকের সম্পদের উৎস মাইক্রোসফট ও তাঁর নিজস্ব সম্পত্তি। তিনি যুক্তরাষ্টের নাগরিক। হার্বার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন তিনি তাঁর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাজীবনের ইতি টানেন। বিল গেটস তাঁর স্ত্রী মেনিল্ডা গেটসকে সাথে নিয়ে বিশ্বসেরা দাতব্য প্রতিষ্টান বিলি এন্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন।

 

 

১. জেফ বেজস

বিশ্বখ্যাত ফোবস এর তথ্য অনুযায়ী বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তির স্থানে আছেন অ্যামাজন এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী জেফ বেজস। তিনি একজন মার্কিন নাগরিক। তিনি প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যাচেলর অব আর্টস অর সাইন্সে শিক্ষাগ্রহণ করেছেন। ৫৪ বছর বয়সী বেজসের সম্পদের উৎস  অ্যামাজন ও তাঁর নিজস্ব সম্পত্তি। চলতি বছরে সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী তাঁর সম্পদের পরিমাণ ১২০ বিলিয়ন ডলার।

 

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *