রোদ-বৃষ্টির বৈশাখী উৎসব

বাঙালির জীবনে শনিবার ভোর এসেছে নতুন বারতা নিয়ে। এই ভোরের আলোয় বাংলা পঞ্জিকায় সূচনা ঘটেছে নতুন বছরের।

সকাল থেকেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছিল ব্যাপক জন সমাগম। নাগরদোলায় চড়েন অনেকে, কেউ কেউ মেতে ওঠেন খেলায়; বাদ থাকেনি কেনাকাটা আর গ্রামীণ স্বাদের খাবার উপভোগ। তুলির আঁচড়ে নিজেকে রাঙিয়েছেন অনেকে।

দেশে ও দেশের বাইরে সকল বাঙালিকে বাংলা নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।গণভবনে দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, “এই নতুন বছর আমাদের জন্য শুভ ফল নিয়ে আসুক, যেন বাংলাদেশকে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা হিসাবে গড়তে পারি।”

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর মিলনায়তনে নববর্ষ বরণ অনুষ্ঠান শুরু হয় সকাল সাড়ে ৯টায়।  এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, এ  অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশন করে নৃত্যজন ও সঙ্গীতাঙ্গন মনিপুর। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কল্পরেখা, ইউসেপ স্কুল, আগারগাঁও আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও বধ্যভূমির সন্তানদলের পরিবেশনা। অনুষ্ঠানে বাউল গান পরিবেশন করেন রঞ্জিত দাস বাউল ও মমতা দাসী।

রাজধানীর শাহবাগ, টিএসসি, রমনা পার্ক, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানসহ আশপাশের এলাকায় পহেলা বৈশাখের আনন্দ উপভোগ করতে এসে বৃষ্টিতে ভিজে যান অনেকেই।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *