রাশিয়া বিশ্বকাপে যেসব ভেন্যুতে খেলা হবে

২০১৮ বিশ্বকাপে গ্রুপ স্টেজ থেকে শুরু করে ফাইনাল পর্যন্ত মোট ৬৪টি ম্যাচ হবে। এগুলোর জন্য আয়োজক দেশ রাশিয়া বিভিন্ন শহরে মোট ১২টি স্টেডিয়াম প্রস্তুত করেছে।

১. লুঝনিকি স্টেডিয়াম, মস্কো

রাশিয়ার রাজধানী মস্কো দেশের পশ্চিমাঞ্চলে মস্কোভা নদীর তীরে। স্টেডিয়ামটি নদীর একটি বাঁকে একটি বিশাল পার্কের মাঝে, মস্কোর কেন্দ্র থেকে ছয় কি.মি. পশ্চিমে। ধারণক্ষমতা  ৮১,০০৬। উদ্বোধন ১৯৫৬ সালে তবে আগাপাশতলা সংস্কারের পর ২০১৮ সালে নতুন করে এটি চালু করা হয়েছে।

গ্রুপ ম্যাচ : রাশিয়া-সৌদি আরব (বৃহস্পতিবার, জুন ১৪, জিএমটি ১৫:০০), জার্মানি-মেক্সিকো (রোববার, জুন ১৭, জিএমটি ১৫:০০), পর্তুগাল-মরক্কো (বুধবার, জুন ২০, জিএমটি ১২:০০), ডেনমার্ক-ফ্রান্স (মঙ্গলবার, জুন ২৬, জিএমটি ১৪:০০)।

নক-আউট ম্যাচ: শেষ ১৬ – গ্রুপ বি জয়ী – গ্রুপ এ রানার আপ (রোববার, জুলাই ১, জিএমটি ১৪:০০), ২য় সেমি ফাইনাল (বুধবার, জুলাই ১১, জিএমটি ১৮:০০)

ফাইনাল (রোববার, জুলাই ১৫, জিএমটি ১৫:০০)

২. স্পার্টাক, মস্কো

স্টেডিয়ামটি মস্কোর উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত। ধারণক্ষমতা ৪৩, ২৯৮ জন। ২০১৪ উদ্বোধন করা হয়।

গ্রুপ ম্যাচ: আর্জেন্টিনা-আইসল্যান্ড (শনিবার, জুন ১৬, জিএমটি ১৩:০০), পোল্যান্ড-সেনেগাল (মঙ্গলবার, জুন ১৯, জিএমটি ১৫:০০), বেলজিয়াম-তিউনিসিয়া (শনিবার, জুন ২৩, জিএমটি ১২:০০), সার্বিয়া-ব্রাজিল (বুধবার, জুন ২৭, জিএমটি ১৮:০০)।

নক-আউট ম্যাচ: শেষ ১৬ – গ্রুপ এইচ জয়ী – গ্রুপ জি রানার আপ (মঙ্গলবার, জুলাই ৩, জিএমটি ১৮:০০)

৩. নিঝনি নোভগোরোদ স্টেডিয়াম, নিঝনি নোভগোরোদ

নিজেগোরোদ ওব্লাস্ট অঞ্চলের প্রশাসনিক কেন্দ্র এই নিঝনি নোভগোরোদ শহরটি মস্কোর পূর্ব দিকে ভল্গা এবং ওকা নদীর মোহনায়। মস্কো থেকে দূরত্ব ২৬৫ মাইল। স্টেডিয়ামটির ধারণক্ষমতা ৪৫,৩৩১ জন।

গ্রুপ ম্যাচ : সুইডেন-দক্ষিণ কোরিয়া (সোমবার, জুন ১৮, জিএমটি ১২:০০), আর্জেন্টিনা-ক্রোয়েশিয়া (বৃহস্পতিবার, জুন ২১, জিএমটি ১৮:০০), ইংল্যান্ড-পানামা (রোববার, জুন ২৪, জিএমটি ১২:০০), সুইজারল্যান্ড-কোস্টারিকা (বুধবার, জুন ২৭, জিএমটি ১৮:০০)।

নক আউট ম্যাচ : শেষ ১৬ – গ্রুপ ডি জয়ী বনাম গ্রুপ সি রানার-আপ (রোববার, জুলাই ১, জিএমটি ১৮:০০), কোয়ার্টার-ফাইনাল ১ (শুক্রবার, জুলাই ৬, জিএমটি ১৪:০০)।

৪. মোরদোভিয়া অ্যারেনা, সারানস্ক

মস্কোর দক্ষিণ-পূর্বে সারানস্ক শহরটি মোরদোভিয়া প্রজাতন্ত্রের রাজধানী শহর। শহরটি ভল্গা নদীর অববাহিকায় সারানস্ক এবং ইনসার নদীর মোহনায় অবস্থিত। মস্কো থেকে দূরত্ব: ৪০০ মাইল। স্টেডিয়ামটির ধারণক্ষমতা: ৪৪,৪৪২ জন।

গ্রুপ ম্যাচ: পেরু-ডেনমার্ক (শনিবার, জুন ১৬, জিএমটি ১৬:০০), কলম্বিয়া-জাপান (মঙ্গলবার, জুন ১৯, জিএমটি ১২:০০), ইরান-পর্তুগাল (সোমবার, জুন ২৫, জিএমটি ১৮:০০), পানামা- তিউনিসিয়া (বৃহস্পতিবার, জুন ২৮, জিএমটি ১৮:০০)।

৫. কাজান অ্যারেনা, কাজান

তাতারস্তান প্রজাতন্ত্রের রাজধানী শহর কাজান মস্কোর পূর্বে । শহরটি ভল্গা এবং কাজানাকা নদীর মোহনায়। কাজান অ্যারেনা স্টেডিয়ামটির ধারণক্ষমতা ৪৪,৭৭৯। মস্কো থেকে দূরত্ব ৫১০ মাইল।

গ্রুপ ম্যাচ: ফ্রান্স-অস্ট্রেলিয়া (শনিবার, জুন ১৬, জিএমটি ১০:০০), ইরান-স্পেন (বুধবার জুন ২০, জিএমটি ১৮:০০), পোল্যান্ড-কলম্বিয়া (রোববার, জুন ২৪, জিএমটি ১৮:০০), দক্ষিণ কোরিয়া-জার্মানি (বুধবার, জুন ২৭, জিএমটি ১৪:০০)।

নক-আউট ম্যাচ: শেষ ১৬ – গ্রুপ সি জয়ী বনাম গ্রুপ ডি রানার-আপ (শনিবার, জুন ৩০, জিএমটি ১৪:০০), কোয়ার্টার ফাইনাল ২ (শুক্রবার, জুলাই ৬, জিএমটি ১৮:০০)।

৬. সামারা অ্যারেনা, সামারা

রাশিয়ার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ইউরোপীয় অংশে ভল্গা নদীর পূর্ব তীরের শহর সামারা। মস্কো থেকে দূরত্ব ৬৫৫ মাইল। স্টেডিয়ামটির ধারণক্ষমতা ৪৪,৮০৭।

গ্রুপ ম্যাচ: কোস্টা রিকা-সার্বিয়া (রোববার জুন ১৭, জিএমটি ১২:০০), ডেনমার্ক-অস্ট্রেলিয়া (বৃহস্পতিবার, জুন ২১, জিএমটি ১২:০০), উরুগুয়ে-রাশিয়া (সোমবার, জুন ২৫, জিএমটি ১৪:০০), সেনেগাল-কলম্বিয়া (বৃহস্পতিবার, জুন ২৮, জিএমটি ১৪:০০)।

নক-আউট: শেষ ১৬ – গ্রুপ ই জয়ী বনাম গ্রুপ এফ রানার-আপ (সোমবার, জুলাই ২, জিএমটি ১৪:০০), কোয়ার্টার ফাইনাল ৪ (শনিবার, জুলাই ৭, জিএমটি ১৮:০০)

৭. ইয়েকাতেরিনবার্গ অ্যারেনা, ইয়েকাতেরিনবার্গ

উরাল পর্বতের পাদদেশে ইয়েকাতেরিনবার্গ শহরটি রাশিয়ার চতুর্থ বৃহত্তম শহর। ভৌগলিকভাবে ইয়েকাতেরিনবার্গ ইউরোপ এবং এশিয়ার সীমান্তরেখায়। মস্কো থেকে দূরত্ব: ১,০৯০ মাইল ইয়েকাতেরিনবার্গ অ্যারেনা স্টেডিয়ামটির ধারণ-ক্ষমতা ৩৫,৬৯৬।

গ্রুপ ম্যাচ: মিশর-উরুগুয়ে (শুক্রবার, জুন ১৫, জিএমটি ১২:০০), ফ্রান্স-পেরু (বৃহস্পতিবার, জুন ২১, জিএমটি ১৫:০০), জাপান-সেনেগোল (রোববার, জুন ২৪, জিএমটি ১৫:০০), মেক্সিকো-সুইডেন (বুধবার, জুন ২৭, জিএমটি ১৪:০০)।

৮. সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়াম, সেন্ট পিটার্সবার্গ

নেভা নদীর তরে বাল্টিক সাগর উপকূলের এই শহরটি বিশ্বকাপের সর্ব-উত্তরের ভেন্যু। সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামটির ধারণ-ক্ষমতা ৬৮,১৩৪। মস্কো থেকে দূরত্ব  ৪২৫ মাইল।

গ্রুপ ম্যাচ: মরক্কো-ইরান (শুক্রবার, জুন ১৫, জিএমটি ১৫:০০), রাশিয়া-মিশর (মঙ্গলবার, জুন ১৯, জিএমটি ১৮:০০), ব্রাজিল-কোস্টারিকা (শুক্রবার জুন ২২, জিএমটি ১২:০০), নাইজেরিয়া-আর্জেন্টিনা (মঙ্গলবার, জুন ২৬, জিএমটি ১৮:০০)।

নক-আউট: শেষ ১৬: গ্রুপ এফ জয়ী বনাম গ্রুপ ই রানার-আপ (মঙ্গলবার, জুলাই ৩, জিএমটি ১৪:০০), সেমি-ফাইনাল ১ (মঙ্গলবার, জুলাই ১০, জিএমটি ১৮:০০), তৃতীয় বনাম চতুর্থ প্লে-অফ (শনিবার, জুলাই ১৪, জিএমটি ১৪:০০)।

৯. কালিনিনগ্রাদ স্টেডিয়াম, কালিনিনগ্রাদ

কালিনিনিগ্রাদ ওব্লাস্ট অঞ্চলের প্রশাসনিক কেন্দ্র এই শহরটি। অঞ্চলটি বাল্টিক সাগর তীরে পোল্যান্ড এবং লিথুয়ানিয়ার মাঝে একটি রুশ এলাকা। মস্কো থেকে দূরত্ব: ৭৭০ মাইল। কালিনিনগ্রাদ স্টেডিয়ামের ধারণ-ক্ষমতা : ৩৫,২১২।

গ্রুপ ম্যাচ: ক্রোয়েশিয়া-নাইজেরিয়া (শনিবার, জুন ১৬, জিএমটি ১৯:০০) সার্বিয়া-সুইজারল্যান্ড (শুক্রবার, জুন ২২, জিএমটি ১৮:০০). স্পেন-মরক্কো (সোমবার, জুন ২৫, জিএমটি ১৮:০০) ইংল্যান্ড-বেলজিয়াম (বৃহস্পতিবার, জুন ২৮, জিএমটি ১৮:০০)।

১০. ভলগোগ্রাদ অ্যারেনা, ভলগোগ্রাদ

ভল্গা নদীর পাড়ে রাশিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমের এই শহরটি পূর্বের নাম স্টালিনগ্রাদ। মস্কো থেকে দূরত্ব: ৫৮৫ মাইল। ভলগোগ্রাদ অ্যারেনার ধারণ-ক্ষমতা ৪৫,৫৬৮।

গ্রুপ ম্যাচ: তিউনিসিয়া-ইংল্যান্ড (সোমবার, জুন ১৮, জিএমটি ১৮:০০), নাইজেরিয়া-আইসল্যান্ড (শুক্রবার, জুন ২২, জিএমটি ১৫:০০), সৌদি আরব-মিশর (সোমবার, জুন ২৫, জিএমটি ১৪:০০), জাপান-পোল্যান্ড (বৃহস্পতিবার, জুন ২৮, জিএমটি ১৪:০০)।

১১. রোস্তভ অ্যারেনা, রোস্তভ-অন-ডন

মস্কোর দক্ষিণে ডন নদীর তীরে এই শহরটি আজভ সাগর থেকে মাত্র ২০ মাইল দূরে। মস্কো থেকে দূরত্ব ৬৯০ মাইল। রোস্তভ অ্যারেনা স্টেডিয়ামের ধারণ-ক্ষমতা ৪৫,১৪৫।

গ্রুপ ম্যাচ: ব্রাজিল-সুইজারল্যান্ড (রোববার, জুন ১৭, জিএমটি ১৮:০০), উরুগুয়ে-সৌদি আরব (বুধবার, জুন ২০, জিএমটি ১৫:০০), দক্ষিণ কোরিয়া-মেক্সিকো (শনিবার, জুন ২৩, জিএমটি ১৫:০০), আইসল্যান্ড-ক্রোয়েশিয়া (মঙ্গলবার, জুন ২৬, জিএমটি ১৮:০০)

নক আউট: শেষ ১৬ – গ্রুপ জি জয়ী বনাম গ্রুপ এইচ রানার-আপ (সোমবার, জুলাই ২, জিএমটি ১৮:০০)।

১২. ফিশ্ট স্টেডিয়াম, সোচি

কৃষ্ণ সাগরের তীরে ১৪০ কি.মি. দীর্ঘ এই শহরটি ইউরোপের দীর্ঘতম শহর। শহরের অন্যদিকে ককেসাস পর্বতমালা। মস্কো থেকে দূরত্ব: ১,০৪০ মাইল। 12 ফিশ্ট স্টেডিয়ামের ধারণ-ক্ষমতা ৪৭,৭০০।

গ্রুপ ম্যাচ: পর্তুগাল-স্পেন (শুক্রবার, জুন ১৫, জিএমটি ১৮:০০), বেলজিয়াম-পানামা (সোমবার, জুন ১৮, জিএমটি ১৫:০০), জার্মানি-সুইডেন (শনিবার, জুন ২৩, জিএমটি ১৮:০০), অস্ট্রেলিয়া-পেরু (মঙ্গলবার, জুন ২৬, জিএমটি ১৪:০০)।

নক-আউট: শেষ ১৬- গ্রুপ এ জয়ী বনাম গ্রুপ বি রানার-আপ) (শনিবার, জুন ৩০, জিএমটি ১৮:০০), কোয়ার্টার ফাইনাল ৩ (শনিবার, জুলাই ৭, জিএমটি ১৪:০০)।

 

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *