চালু হচ্ছে ই- পাসপোর্ট

পদ্মাসেতু প্রকল্পে নদী শাসনে ভূমি অধিগ্রহণে ব্যয় বৃদ্ধিসহ ১৫ প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।বৃহস্পতিবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেক বৈঠকে ১৮ হাজার ৩৭২ কোটি টাকা ব্যয়ের এই প্রকল্পগুলো অনুমোদন দেয়া হয়েছে।সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রকল্পগুলোর বিষয়ে অবহিত করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

ই-পাসপোর্টের জন্য ডেমোগ্রাফিক তথ্য, দশ আঙুলের ছাপ, চোখের কর্নিয়ার ছবি এবং ডিজিটাল স্বাক্ষর সংগ্রহ করে যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ডাটা সেন্টার ও ডিজাস্টার রিকভারি সেন্টারের সার্ভারে সংরক্ষণ করা হবে।

সভায় জানানো হয়েছে, আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান চলাচল সংস্থার গাইডলাইন অনুযায়ী বাংলাদেশ সরকার ২০১০ সালের পহেলা এপ্রিল মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) ও মেশিন রিডেবল ভিসা (এমআরভি) চালু করে। কিন্তু এমআরপি ব্যবস্থায় পাসপোর্টের জালিয়াতির সম্ভাবনা রয়ে যায়। বিশেষ করে দশ আঙুলের ছাপ ডাটাবেজে সংরক্ষণ না থাকার সুযোগে এই সিস্টেমটির দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে একাধিক পাসপোর্ট করার প্রবণতা ধরা পড়ে। ফলে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমটি চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এজন্য একনেক সভায় ৪ হাজার ৬৩৫ কোটি ৯১ লাখ টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশে ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা প্রবর্তন শীর্ষক প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এটি চলতি অর্থবছর শুরু হয়ে ২০২৮ সালের জুন পর্যন্ত মেয়াদে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। সভায় জানানো হয়েছে, এই প্রকল্পের আওতায় ২০ লাখ ই-পাসপোর্ট বুকলেট সরাসরি আমদানি এবং ২ কোটি ৮০ লাখ দেশে উৎপাদন করা হবে।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *