ভারতের আসামে ‘বাংলাদেশি হিন্দু’বিরোধী আন্দোলন

ভারতের আসামে ‘বাংলাদেশি হিন্দু’বিরোধী আন্দোলন করছে কয়েকটি সংগঠন। তাদের দাবি, নাগরিকত্ব সংশোধন বিলের মাধ্যমে ‘বাংলাদেশি হিন্দুদের’ নাগরিকত্ব দেওয়া চলবে না। এ দাবিতে গত শুক্রবার রাতে মশাল হাতে মিছিলে অংশ নেন অসমিয়ারা।

ভারতে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন সরকার বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে বেআইনি অনুপ্রবেশকারী হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান, শিখ ও জৈনদের নাগরিকত্ব দিতে চায়। এ জন্য সংবিধান সংশোধনী বিল এনেছে জাতীয় সংসদে।

এই বিলের প্রতিবাদে আসামে আন্দোলনের তীব্রতা বেড়েই চলেছে। গণ–আন্দোলনের পাশাপাশি দেখা দিয়েছে জঙ্গি কার্যকলাপ বৃদ্ধির আশঙ্কাও।

গতকাল রাতে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল বাতিলের দাবিতে মিছিল বের করে আসু (সারা আসাম ছাত্র সংস্থা)। সংগঠনটি আটের দশক থেকেই তীব্র বাঙালিবিদ্বেষী বলে পরিচিত।

একই দাবিতে গতকাল সকালে রাজধানী গুয়াহাটিতে মিছিল বের করে কৃষক মুক্তি সংগ্রাম সমিতি (কেএমএসএস) ও সারা আসাম সংখ্যালঘু ছাত্র সংস্থা (আমসু)।

আসামে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন সংযুক্ত মুক্তি বাহিনী ও আসামের স্বাধীন গোষ্ঠীতেও (উলফা-আই) যোগদানের বহর বেড়ে গিয়েছে। উলফায় নতুন করে যোগদানের কারণ হিসেবে সংগঠনের নেতা অনুপ চেটিয়া নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলকেই দায়ী করেন। তারা বলেন, আসাম বা ভারত সরকারের ওপর অসমিয়াদের আর আস্থা নেই। বাংলাদেশিদের হাত থেকে রাজ্যকে বাঁচাতে তাই অস্ত্র তুলে নেওয়ার ঝোঁক বাড়ছে।

রাজ্য পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিচালক পল্লব ভট্টাচার্যও সাংবাদিকদের কাছে স্বীকার করেছেন, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলই তরুণ প্রজন্মকে অস্ত্র হাতে তুলে নিতে প্রলুব্ধ করছে।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতা করছে হিন্দু বাঙালিদেরও একটা বড় অংশ। জাতপাতের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়ার নামে বিজেপির বিরুদ্ধে ‘ভাঁওতাবাজির’ অভিযোগ রয়েছে তাদের।

তবে বাঙালিদের মধ্যে ফাটল ধরানোর চেষ্টা করা হচ্ছে বলে মনে করছেন অনেকে। তাদের মতে, বাঙালির ঐক্য ধ্বংস করতেই এসব করা হচ্ছে।

অারো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *